সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর তুরাগ এলাকা হতে অবৈধ অস্ত্র, জাল নোট ব্যবসা ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত আব্দুল মালেক @ ড্রাইভার মালেক (৬৩) গ্রেফতার \ বিপুল পরিমান জাল নোটসহ ০১ টি বিদেশী পিস্তল উদ্ধার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে সাভার ও আশুলিয়া এলাকায় র‌্যাবের পৃথক অভিযানে ৪৩২ ক্যান বেলজিয়ান বিয়ারসহ ২ জন ও ৩১৬ পিস ট্যাপেন্টাডলসহ ৩ জন গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ এলাকা হতে অস্ত্র ও গুলিসহ ১ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলিয়া থানাধীন নতুন ব্রীজ গোল চত্ত¡র এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৩,৫৩০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত একটি যাত্রীবাহী বাস জব্দ। ✱ র‌্যাবের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের বন্দর হতে দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধারসহ ০৫ জন গ্রেফতার। ✱ চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতয়ালী থানাধীন স্টেশন রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩.৬৯০ কেজি ওজনের একটি কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারসহ ০১ জন চোরাকারবারী’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭। ✱ র‌্যাবের অভিযানে সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ থানার খাগাইল গ্রাম থেকে ১৪৫ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালী থানাধীন রাজগঞ্জ বাজার এলাকা হতে ৩,২৪,৮২৫ পিচ চোরাই বিদেশী সিগারেটসহ ০৩ জন চোরাকারবারী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর দারুস সালাম থানাধীন কল্যানপুর এলাকা হতে ১১৯ ক্যান বিয়ারসহ ১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার। ✱ র‌্যাব-৮, সিপিসি-১(পটুয়াখালী ক্যাম্প) কর্তৃক বরগুনার আমতলী উপজেলা হতে ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক একজন আসামী গ্রেফতার ✱

কমিউনিকেশন অ্যান্ড এমআইএস উইং

 

অত্যাধুনিক প্রযুক্তি এবং যুগোপযোগী যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে র‌্যাব ফোর্সেস এর আভিযানিক ও প্রশাসনিক সক্ষমতা বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে কমিউনিকেশন এন্ড এমআইএস উইং ১৪ জুলাই ২০০৫ তারিখে পূর্ণাঙ্গরূপে যাত্রা শুরু করে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে পেশাদারিত্ব, দক্ষতা, সততা ও নিরপেক্ষতার সাথে কাজ করে এই উইং অবিচল আস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছে। দ্রুত, নিরাপদ ও কার্যকরী সেবা প্রদান করাই এ উইং এর মূল উদ্দেশ্য। এই উইং নিন্মক্ত কার্যক্রম সফলতার সাথে সম্পন্ন করে আসছেঃ
     
১।    নেটওয়ার্কিংঃ    র‌্যাব ফোর্সেস এর জন্য দ্রুত ইন্টারনেট ও ডাটা কানেক্টিভিটি সেবা প্রদানের জন্য অপটিক্যাল ফাইবার ব্যাকবোন-এর মাধ্যমে সার্ভারের সমন্বয়ে এবং হাইস্পিড ডাটা কানেক্টিভিটি দ্বারা ব্যাটালিয়নগুলোর সাথে নেটওয়ার্কিং স্থাপন করা হয়েছে। এ নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর এবং অন্যান্য ব্যাটালিয়ন সমূহের সাথে নিরাপদে ভিডিও, ভয়েস ও ডাটা  ট্রান্সমিশন করা হয়।
 
২।    ক্রিমিনাল ডাটাবেসঃ    অত্র উইং এর অন্যতম সফলতার মধ্যে একটি হল র‌্যাবের ক্রিমিনাল ডাটাবেস সিস্টেম স্থাপন যা এমআইএস শাখা রক্ষণাবেক্ষণ করে থাকে। এই বায়োমেট্রিক ক্রিমিনাল ডাটাবেস এ অপরাধীদের ছবি, ফিঙ্গার প্রিন্ট ও আইরিস চিত্র সহকারে তথ্য সংগ্রহ ও রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় যা পরবর্তীতে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য ভান্ডারের সাথে মিলিয়ে তার বিস্তারিত পরিচয় এর সত্যতা যাচাই করা হয়। কেউ একাধিক অপরাধ করলে তার ব্যাপারেও ডাটাবেস থেকে তথ্য পাওয়া যায়। এ পর্যন্ত এই ডাটাবেজে ৮৩৫৪৩ জন অপরাধীর তথ্য এন্ট্রি করা হয়েছে।

৩।    ভিটিএসঃ    ভেহিক্যাল ট্র্যাকিং সিস্টেম (ভিটিএস) এর মাধ্যমে র‌্যাব ফোর্সেস এর সকল টহল যানবাহন ট্র্যাকিং করে গতিবিধি তদারকী করা হয় এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান করা হয়। এর মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে নির্দিষ্ট কোন স্থানে নিকটবর্তী টহল টিম প্রেরণ করে আইন শৃংখলা রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখা সম্ভব হচ্ছে।

৪।    ভিডিও কনফারেন্সিং সিস্টেমঃ    র‌্যাব ফোর্সেসকে উন্নত সেবা প্রদান ও যোগাযোগ সহজীকরণ করতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ভিডিও কনফারেন্সিং সিস্টেম সংযুক্ত করা হয়েছে। উন্নত মানের ক্যামেরা ও মাইক্রোফোন এর মাধ্যমে র‌্যাব এর অপটিক্যাল ফাইবার ব্যাকবোন ব্যবহার করে মহাপরিচালক, র‌্যাব ফোর্সেস র‌্যাবের সব ব্যাটালিয়নের পরিচালকগণের সঙ্গে সহজে ভিডিও কনফারেন্সিং করতে পারেন। এর মাধ্যমে র‌্যাব বিভিন্ন প্রশাসনিক, গোয়েন্দা এবং অপারেশনাল কার্যক্রম আরো দ্রুত, কার্যকর ও গোপনীয়তার সাথে সম্পন্ন করছে।

৫।    ই-সেবাঃ    এমআইএস উইং বিভিন্ন ই-সেবা প্রদান করে থাকে, যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে র‌্যাবের নিজস্ব ডোমেইন ব্যবহার করে সুরক্ষিত মেইল সেবা প্রদান করা। র‌্যাবের ডাইনামিক ওয়েবসাইট (www.rab.gov.bd) রক্ষণাবেক্ষণ, হালনাগাদকরণ এবং বিভিন্ন ধরনের আইটি বিষয়ক সেবা প্রদান করা হয়।


৬।    Digital VHF Communication System :   নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা আইন শৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অপরিহার্য অঙ্গ। র‌্যাবের পূর্ববর্তী  Motorolla Analog VHF System কে অত্যাধুনিক DMR Tier-3 VHF System দ্বারা প্রতিস্থাপিত করে র‌্যাবের VHF যোগাযোগ ব্যবস্থাকে অত্যাধুনিক ও যুগোপযোগী করা হয়েছে। এই DMR Tier-3 VHF নেটওয়ার্ক AES 256 bit encryption সম্পন্ন যা যোগাযোগকে দানকরে সর্বাধুনিক সুরক্ষা। একই সময়ে একাধিক ব্যবহারকারী এই Digital VHF System ব্যবহার করে সমগ্র দেশব্যাপী যোগাযোগ করতে সক্ষম। অত্র উইং এর সার্বিক তত্বাবধানে এই System র‌্যাব সদর দপ্তর সহ ১৫ টি ব্যাটালিয়নে স্থাপন করা হয়েছে। সমগ্র দেশব্যাপী অভিন্ন একটি VHF নেটওর্য়াক দ্বারা যোগাযোগ বাংলাদেশে প্রথম বারের মত র‌্যাব ফোর্সেসই ব্যবহার করছে। এ ব্যবস্থাটির মাধ্যমে র‌্যাবের সদস্যগণ বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত থেকে একে অপরের সাথে Walkie Talkie সেটের মাধ্যমে সরাসরি যোগাযোগ করতে সক্ষম। 

 
৭।    Prison Inmate Database:    অপরাধ নিয়ন্ত্রনে অপরাধীদের জীবন বৃত্তান্ত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। অপরাধ দমন ও নির্ণয়ের ক্ষেত্রে এই জীবন বৃত্তান্ত ব্যবহারের লক্ষ্যে র‌্যাব ও কারা অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে দেশের প্রতিটি কারাগারে প্রিজনারদের জীবন বৃত্তান্ত কম্পিউটারাইজড করার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এ পর্যন্ত ৪৫টি কারাগারে এই তথ্যাদি সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। উক্ত সিস্টেমে অপরাধীদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট, আইরিশ, জেলখানায় আগমনের তারিখ, জামিনে যাওয়ার তারিখ সহ নানা ধরনের তথ্য লিপিবদ্ধ করা হয়। এ পর্যন্ত এই ডাটাবেজে ৪৬৪৯৪৪ জন কয়েদির তথ্য এন্ট্রি করা হয়েছে। এর ফলে অতি সহজে কয়েদীর বিভিন্ন তথ্য খুব নির্ভূলভাবে পর্যালোচনা করে অপরাধের ধরন, অপরাধীর পারিবারিক বা আর্থ সামাজিক অবস্থা, কি ধরনের সংগঠনের সাথে জড়িত প্রভৃতি তথ্যাদি জানা সম্ভব।

৮।    Report 2 RAB Android/IOS Application:    জনসেবা সহজতর করা, জনভোগান্তি দূর করা, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদসহ নানাবিধ অপরাধ দমন আরও দ্রুততর করার লক্ষ্যে র‌্যাব ফোর্সেস কর্তৃক ‘‘Report 2 RAB’’ নামে একটি মোবাইল এ্যাপসের কার্মক্রম গ্রহণ করা হয়। এ্যাপসটির মাধ্যমে খুব সহজেই যে কোন স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা জঙ্গী, সন্ত্রাসী, সোস্যাল মিডিয়া, হারিয়ে যাওয়া ব্যক্তির তথ্য, খুন, ডাকাতি, মাদক, অপহরণসহ অন্যান্য বিষয়ে ক্যাটাগরি অনুযায়ী নাম পরিচয় গোপন রেখে তথ্য প্রদান করতে পারে। ‘‘রিপোর্ট টু র‌্যাব’’ মোবাইল এ্যাপসটির মাধ্যমে সাধারণ নাগরিকদের পাঠানো অপরাধ সংক্রান্ত তথ্যের ভিত্তিতে অপরাধ দমন ও প্রতিরোধে র‌্যাব তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতঃ র‌্যাবের অপারেশনাল কার্যক্রমকে আরও বেগবান করতে সক্ষম হয়েছে।

৯।    Video Backpack System :    জঙ্গী, সন্ত্রাসী সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অভিযানে অনেক সময় কেন্দ্রীয় কমান্ডের নির্দেশনা প্রদানের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। কিন্তু সব সময় কেন্দ্রীয় কমান্ডের অভিযানস্থলে পৌছা সম্ভব হয় না। এ অবস্থার প্রেক্ষিতে এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ অভিযান যাতে র‌্যাব সদর দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ সরাসরি পর্যবেক্ষণ করতে পারেন এবং প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করতে পারেন সেজন্য অত্র উইং এর তত্ত্বাবধানে Video Backpack System চালু করা হয়। Video Backpack System এর মাধ্যমে এখন যে কোন গুরুত্বপূর্ণ অভিযান র‌্যাব সদর দপ্তরে সরাসরি টেলিকাস্ট করা সম্ভব।

১০।    ERP :    র‌্যাবের প্রশাসনিক এবং অপারেশনাল কার্যক্রম ডিজিটালাইজ করার লক্ষ্যে অত্র উইং এর উদ্যোগে Enterprise Resource Planning (ERP) সফটওয়্যার বান্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। উক্ত সফটওয়্যারের মাধ্যমে র‌্যাবের সদস্যদের পদোন্নতি, গমনাগমন, ব্যাটালিয়ন এবং উইং ভিত্তিক যানবাহনের, বিভিন্ন ষ্টোরসহ যাবতীয় বিষয়াদী কম্পিউটারাইজড করা হয়েছে। যার ফলে ঐ সকল তথ্য ব্যবহার করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের decision making সহজ ও সঠিক হবে এবং Paperless office system এর দিকে আরেকধাপ এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে।

১১।    DIGITAL ACCESS CONTROL SYSTEM :     আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ ও দেশীয় জঙ্গীবাদ ইস্যুকে বিবেচনায় নিয়ে র‌্যাব সদর দপ্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের লক্ষ্যে অত্র উইং কর্তৃক একটি Digital Access Control System স্থাপন করা হয়। এ ব্যবস্থার আওতায় র‌্যাব সদর দপ্তরে RFID Based Vehicle Control, Baggage Scanner, Facial detection & Fingerprint Based Biometric Access Control স্থাপন করা হয়েছে। 

১২।     DATA CENTER:  অপারেশনাল কার্যক্রম গতিশীল এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধির লক্ষ্যে র‌্যাব বিভিন্ন ধরনের তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে থাকে। তথ্য প্রযুক্তির যাবতীয় কার্যক্রম র‌্যাবের নিজস্ব সার্ভার এবং নেটওয়ার্ক যন্ত্রপাতি দ্বারা পরিচালিত হয়। এ ধরনের যন্ত্রপাতির সুষ্ঠু রক্ষনাবেক্ষণের প্রয়োজনীয়তায় অত্র উইং কর্তৃক র‌্যাব সদর দপ্তরে একটি আধুনিক ডাটা সেন্টার স্থাপনের যাবতীয় উদ্যোগ এবং কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। সে মতে ডাটা সেন্টারটি স্থাপিত হয় যা পূর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে র‌্যাবের তথ্য প্রযুক্তিগত কার্যক্রমকে গতিশীল করতে সহায়তা করবে। 

১৩।    Disaster Recovery Server/Site :   র‌্যাব সদর দপ্তরে স্থাপিত ডাটা সেন্টারটির কার্যক্ষমতা দুর্যোগ বা অন্য কোন কারনে স্থবির হয়ে পড়লেও যাতে তথ্য প্রযুক্তির প্রবাহ স¦াভাবিক থাকে সেজন্য দূরবর্তী স্থানে উক্ত ডাটা সেন্টারটির একটি রেপ্লিকা স্থাপন করা হয়েছে। Realtime synchronization এর মাধ্যমে DR Site  দ্রুততার সাথে সকল তথ্যের ব্যাকআপ রাখবে। সকল তথ্যের অনুলিপি এই DR Site এ সংরক্ষিত থাকবে যা অত্র উইং এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হবে।