সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
র‌্যাবের অভিযানে ফেনী জেলার ফেনী সদর থানাধীন শহীদ শহীদুল্লা কায়সার সড়ক এলাকা হতে ৯,৫০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের পৃথক পৃথক অভিযানে রাজধানীর তেজগাঁও এবং মোহাম্মদপুর থানা এলাকা হতে ০২ জন নারী মাদক ব্যবসায়ীসহ ০৩ জন গ্রেফতার। ✱ মহাপরিচালক, র‌্যাব ফোর্সেস এর বক্তব্য ✱ র‌্যাবের অভিযানে ধামরাই এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ০৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ✱ র‌্যাবের অভিযানে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকা হতে ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজীর সময় ওয়াকিটকি, হ্যান্ডকাফ, দেশীয় অস্ত্র, মাইক্রোবাসসহ হাতেনাতে ০৪ জন গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ✱ র‌্যাবের অভিযানে ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানা হতে গাঁজাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী এবং ০১ জন মাদক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী আটক ✱ র‌্যাবের অভিযানে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানার শেরুলবাগ এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ✱ র‌্যাবের অভিযানে বিভিন্ন কলেজের ফলাফল পরিবর্তনের নামে প্রতারক চক্রের মূলহোতা ও সহকারী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে ঃ বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চ ডুবির ঘটনায় অভিযুক্ত ময়ূর-০২ লঞ্চ এর মাষ্টার গ্রেফতার । ✱ র‌্যাবের অভিযানে ঢাকা মহানগরীর শাহবাগ থানা এলাকা হতে ০১টি বিদেশী পিস্তল, ০১ রাউন্ড গুলি ও ০১টি ম্যাগাজিনসহ ০১ জন কুখ্যাত সন্ত্রাসী গ্রেফতার। ✱

র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইল এলাকা হতে শিশু সন্তানকে হত্যাকারী বাবাসহ ০২ জন গ্রেফতার \

প্রকাশের তারিখ : ০১-০৭-২০২০

২৯ জুন ২০২০ ইং তারিখ র‌্যাব—১০ এ হাজির হয়ে শিশু ভিকটিম মাহিম (৩ বছর ৭ মাস) এর পিতা মোঃ জুলহাস (৩১) অভিযোগ দাখিল করেন যে, তার ছেলে মাহিমকে গত ২৭/০৬/২০২০ ইং তারিখ ১২.৩০ ঘটিকা হতে কে বা কাহারা অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণের বিষয়ে ভিকটিমের বাবা যাত্রাবাড়ী থানায় জিডি করেন, জিডি নং—১৮৪৫, তারিখ ২৯—০৬—২০২০ ইং। 

৩।    উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ৩০ জুন ২০২০ ইং তারিখ ১৯০০ ঘটিকায় সিপিএসসি, র‌্যাব—১০ এর কোম্পানী কমান্ডার উপ—পরিচালক আলী রেজা রাব্বী ও স্কোয়াড কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান এর নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল ডিএমপি ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইল মৃধাবাড়ি রাজমহল হোটেলের সামনে হতে অপহরণের সাথে জড়িত মোঃ জুয়েল ব্যাপারী (২০) কে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জুয়েল ভিকটিম মাহিমকে অপহরণের কথা স্বীকার করে এবং এই অপহরণের সাথে ভিকটিমের পিতা জুলহাস@ফারুক@গুড্ডা এর সংশ্লিষ্টতার কথা জানালে র‌্যাব জুলহাসকে মাতুয়াইল দরবার শরীফ মোড় এলাকা হতে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে ভিকটিমের পিতা জুলহাস এবং অপর অপহরণকারী জুয়েলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা ভিকটিমকে অপহরণ করে জুসের সাথে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে পান করিয়ে হত্যা করে মর্মে স্বীকার করে। 

৪।    অনুসন্ধানে জানা যায়, ভিকটিমের পিতা জুলহাস পূর্ব হতে যৌতুকের টাকা দাবীসহ বিদেশ যাওয়ার জন্য চার লক্ষ টাকা দাবী করলে শ্বশুর পক্ষ থেকে টাকা না পেয়ে বিভিন্ন সময় স্ত্রীকে নির্যাতন করে আসছিল। পারিবারিক কলহ এবং শ্বশুর বাড়ী হতে টাকা না পেয়ে ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে নিজ সন্তানকে হত্যার জন্য প্রতিবেশী জুয়েলকে নিয়ে পরিকল্পনা করে। পূর্ব পরিকল্পনা মতে, গত ২৬ জুন ২০২০ তারিখ জুয়েল ঘুমের ঔষধ (০৮টি ট্যাবলেট) ক্রয় করে জুলহাসকে দেয়। ২৭ জুন ২০২০ তারিখ আনুমানিক ১২৩০ ঘটিকায় জুয়েল ভিকটিমকে তার বাসার সামনে হতে ফুসলিয়ে ভিকটিমের পিতার নিকট পূর্ব নির্ধারিত স্থান মাতুয়াইল বাসস্ট্যান্ডে নিয়ে যায়। এরপর জুলহাস এবং জুয়েল ভিকটিমকে মাতুয়াইল বাসস্ট্যান্ড হতে নিয়ে দেইল্লা, ডেমরা নির্জন এলাকায় নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে জুসের সাথে ০৮টি ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে পান করায়। এরপর তারা ভিকটিমের মৃত্যু নিশ্চিৎ হলে ঐ দিন সন্ধ্যায় যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইল, মৃধাবাড়ী ময়লার ডিপো সংলগ্ন গ্রীন মডেল টাউন এলাকায় কাশবনের ভিতর বালু চাপা দিয়ে রেখে নিজ বাড়ীতে চলে যায়। এরপর জুলহাস বাচ্চা অপহরণ হয়েছে মর্মে ২৯ জুন ২০২০ তারিখ যাত্রাবাড়ী থানায় একটি জিডি করে। জুলহাস বাচ্চা অপহরণ হয়েছে এটা প্রমাণ করার জন্য ২৯ জুন ২০২০ তারিখ জুয়েলকে দিয়ে মুক্তিপণ চেয়ে নিজের মোবাইলে একটি ম্যাসেজ পাঠায় এবং ২৯ জুন ২০২০ তারিখ র‌্যাব—১০ এ এসে জিডি কপিসহ একটি অভিযোগ করে। 

৬।    র‌্যাব—১০ এর আভিযানিক দল ৩০ জুন ২০২০ তারিখ আনুমানিক ২২৩০ ঘটিকায় হত্যাকারীদের সাথে নিয়ে তাদের দেখানো জায়গা হতে ভিকটিমের মৃতদেহ উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর মৃতদেহ যাত্রাবাড়ী থানায় হস্তান্তর করা হয়।

৭।     ধৃত আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে ডিএমপি ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা রুজুর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।