সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
র‌্যাবের অভিযানে ফেনী জেলার ফেনী সদর থানাধীন শহীদ শহীদুল্লা কায়সার সড়ক এলাকা হতে ৯,৫০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের পৃথক পৃথক অভিযানে রাজধানীর তেজগাঁও এবং মোহাম্মদপুর থানা এলাকা হতে ০২ জন নারী মাদক ব্যবসায়ীসহ ০৩ জন গ্রেফতার। ✱ মহাপরিচালক, র‌্যাব ফোর্সেস এর বক্তব্য ✱ র‌্যাবের অভিযানে ধামরাই এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ০৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ✱ র‌্যাবের অভিযানে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকা হতে ভুয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজীর সময় ওয়াকিটকি, হ্যান্ডকাফ, দেশীয় অস্ত্র, মাইক্রোবাসসহ হাতেনাতে ০৪ জন গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ✱ র‌্যাবের অভিযানে ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানা হতে গাঁজাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী এবং ০১ জন মাদক মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী আটক ✱ র‌্যাবের অভিযানে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানার শেরুলবাগ এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ✱ র‌্যাবের অভিযানে বিভিন্ন কলেজের ফলাফল পরিবর্তনের নামে প্রতারক চক্রের মূলহোতা ও সহকারী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে ঃ বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চ ডুবির ঘটনায় অভিযুক্ত ময়ূর-০২ লঞ্চ এর মাষ্টার গ্রেফতার । ✱ র‌্যাবের অভিযানে ঢাকা মহানগরীর শাহবাগ থানা এলাকা হতে ০১টি বিদেশী পিস্তল, ০১ রাউন্ড গুলি ও ০১টি ম্যাগাজিনসহ ০১ জন কুখ্যাত সন্ত্রাসী গ্রেফতার। ✱

র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর আদাবর থানা এলাকা হতে ১১ হাজার পিস ইয়াবাসহ ০২ (দুই) জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

প্রকাশের তারিখ : ১১-০৭-২০২০

অদ্য ১১/০৭/২০২০খ্রিঃ তারিখ ০০.৪৫ ঘটিকায় র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কুমিল্লা হতে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী পরষ্পর যোগসাজসে আমদানী নিষিদ্ধ ইয়াবা ট্যাবলেট (মাদক) নিয়ে মিরপুর রোড হয়ে  ঢাকা হেমায়েতপুর এলাকায় বিক্রয়ে উদ্দেশ্যে নিয়ে আসছে।   

৩। প্রাপ্ত সংবাদের সত্যতা যাচাইয়ের নিমিত্তে র‌্যাবের আভিযানিক দল ০১.০০ ঘটিকায় ডিএমপি ঢাকা মহানগরীর আদাবর থানাধীন শ্যামলী স্কয়ার এর সামনে একটি চেকপোষ্ট পরিচালনা করে। অতপর ০১.৩০ ঘটিকার সময়  চেকপোষ্ট চলাকালীন হঠাৎ লক্ষিত হয় কিছু দূরে দুই জন লোক দ্রত সিএনজি থেকে নেমে পালানোর চেষ্টা করছেন। পালানোর চেষ্টাকালে আসামী ১। মোহাম্মদ হৃদয় হোসেন, ২। মোহাম্মদ আনাস,কে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে ইয়াবার চালান সংক্রান্ত বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদে প্রথমে অস্বীকার করে। পরবর্তীতে তাদের হাতে থাকা শপিং ব্যাগ তল্লাশি করে ৫,০০০ এবং অপর আর একটি ব্যাগ থেকে ৬,০০০ মোট ১১ হাজার নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য (ইয়াবা ট্যাবলেট) উদ্ধার করা হয়। যার বর্তমান বাজার মূল্য আনুমানিক ৩৫,০০,০০০/- টাকা। গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানায়, তারা পরষ্পর যোগসাজোসে দীর্ঘ দিন যাবৎ কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, টেকনাফ সীমান্ত এলাকা হতে মাদক দ্রব্য (ইয়াবা) ক্রয় করে নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য (ইয়াবা ট্যাবলেট) সুকৌশলে ঢাকায় নিয়ে এসে সরবরাহ ও বিক্রয় করে আসছিল। 

৪। গ্রেফতারকৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানায়, বর্তমান যুব সমাজে ইয়াবার ব্যাপক চাহিদা থাকায় চড়া দামে বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে তারা পরস্পর যোগসাজোসে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, টেকনাফ সীমান্ত এলাকা হতে ইয়াবা সংগ্রহ করে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে নিত্য নতুন কৌশল ব্যবহার করে (নিষিদ্ধ মাদক) ইয়াবা ট্যাবলেট রাজধানীসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে সরবরাহ ও বিক্রয় করে আসছে এবং ইতোপূর্বেও বেশ কয়েকটি ইয়াবার চালান সফলতার সহিত সরবরাহ করেছে বলে জানায়। এছাড়াও গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই বাছাই করে ভবিষ্যতেও এ ধরনের মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।