সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
র‌্যাব-৩ এর অভিযানে ঢাকা মহানগরীর দারুসসালাম এলাকা হতে ১৭৮ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধারসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক। ✱ র‌্যাব-৮, সিপিসি-২ ফরিদপুর ক্যাম্প কর্তৃক ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানা হতে অপহরণকৃত ০৩ জন ভিকটিম উদ্ধার, অপহরণকারী চক্রের ০৪ জন সদস্য আটক। ✱ র‌্যাব-৯ এর অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানাধীন এলাকা থেকে ২০(বিশ) কেজি গাঁজাসহ ০২ জন শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে কোভিড-১৯ টেষ্টের জাল অনুমতিপত্র তৈরি করে দেশব্যাপী কোভিড-১৯ টেষ্টের জন্য লোক নিয়োগের নামে প্রতারণা, র‌্যাব-১১ এর অভিযানে গ্রেফতার ০১ জন। ✱ র‌্যাব-৯ এর অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানাধীন এলাকা থেকে ১,০০২ পিস ইয়াবা সহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ রাজধানীর কদমতলী এলাকায় নকল স্টিল রড/রি-রোলিং স্টিল উৎপাদন, মজুদ ও বিক্রি করায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৪ লক্ষ টাকা জরিমানা। ✱ নারায়ণগঞ্জ ও রাজধানীর কদমতলী হতে র‌্যাবের অভিযানে ৮৯,৬৩০ পিস নকল দেশী সিগারেটসহ ০২ সিগারেট কালোবাজারী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ✱ র‌্যাব-১১ কর্তৃক ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে চলাচলরত নৌযানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা, ১ জনকে কারাদন্ড ও ৪ জনকে জরিমানা ✱ ঢাকা জেলার আশুলিয়া এলাকা হতে ২৭ লক্ষ টাকা মূল্যমানের হেরোইনসহ ১ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। ✱

র‌্যাবের অভিযানে ধামরাই এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ০৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশের তারিখ : ২৭-০৭-২০২০

র‌্যাব-৪ এর আভিযানিক দল ২৭ জুলাই ২০২০ রাত ০০.৩০ ঘটিকায়  অভিযান পরিচলানা করে ঢাকা জেলার ধামরাই থানাধীন ধুলিভিটা বাস স্ট্যান্ড এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর নি¤œবর্ণিত ০৫ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার করেঃ 
(ক) মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ (৩৫), জেলা-চাঁপাইনবাবগঞ্জ।
(খ) মোঃ দুরুল হুদা (৪৪), জেলা- চাঁপাইনবাবগঞ্জ।
(গ) মোঃ আব্দুর রশিদ (২১), জেলা- চাঁপাইনবাবগঞ্জ। 
(ঘ) মোঃ রাসেল (৩৭), জেলা- চাঁপাইনবাবগঞ্জ।
(ঙ) মোঃ আব্দুল হাই (৪০), জেলা- চাঁপাইনবাবগঞ্জ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকারোক্তি দেয়। গ্রেফতারকৃতদের কাছ হতে আনসার আল ইসলাম এর বিভিন্ন ধরনের উগ্রবাদী সম্পর্কিত বই, লিফলেট মোবাইল উদ্ধার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃত মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ (৩৫)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, সে পেশায় ব্যবসায়ী। এক পর্যায়ে আনসার আল ইসলামের স্থানীয় এক সদস্যের সাথে পরিচয় হয় এবং সে তাকে আনসার আল-ইসলামের দাওয়াত দেয় এবং বিভিন্ন বই, লিফলেট ও ভিডিও সরবরাহ করে। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন আনসার আল ইসলামের সাথে জড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে সে উক্ত সংগঠনের সক্রিয় সদস্যদের মধ্যে অন্যতম এবং সে চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকায় আনসার আল ইসলামের অন্যতম সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে আসছে। সে দীর্ঘ দিন যাবত আনসার আল ইসলামের সাথে জড়িত রয়েছে। সে অনলাইনে ০৬টি জঙ্গি গোপনীয় গ্রæপের এডমিন। এই সকল গ্রæপের মাধ্যমে সে জঙ্গি সংগঠন তথা আনসার আল ইসলামের কার্যক্রম পরিচালনা করে ও সদস্যদের উদ্বুদ্ধ করে থাকে। 

গ্রেফতারকৃত মোঃ দুরুল হুদা (৪৪)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে সে পেশায় একজন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছে। আনসার আল ইসলামের চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার সমন্বয়ক মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয়। সে তাকে আনসার আল ইসলামের সংগঠনের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেয়। উক্ত ব্যক্তির কার্যক্রম এবং সংগঠনের কাজে উদ্বুদ্ধ হয়ে আনসার আল ইসলামের সদস্য পদ গ্রহণ করে । বর্তমানে সে জঙ্গি সংগঠন আনসার আল-ইসলামের একজন সক্রিয় সদস্য এবং প্রায় দীর্ঘ দিন যাবত সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছে। সে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আনসার আল-ইসলামের বিভিন্ন ভিডিও, বইপত্র, মোবাইল এ্যাপস সংগ্রহ করতো।  সে নতুন সদস্যদের মোটিভেট করে এবং অর্থ সাহায্য করে থাকে।

গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুর রশিদ (২১), পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। সে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের গোপণ কার্যক্রম দেখে জঙ্গি উদ্বুদ্ধ হয়। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয় এবং তার মাধ্যমে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে। বর্তমানে সে আনসার আল-ইসলামের একজন সক্রিয় সদস্য। 

গ্রেফতারকৃত মোঃ রাসেল (৩৭), কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় সে পেশায় একজন মিস্ত্রী। সে মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এবং মোঃ দুরুল হুদার অনুপ্রেরণায় আনসার আল ইসলাম এর একনিষ্ঠ সদস্য হিসাবে অনেক দিন যাবত কাজ করে আসছে। সে সদস্যদের কাছ থেকে  নিয়মিত চাঁদা  উত্তোলন করে দুরুল হুদাকে প্রদান করত। সে আনসার আল-ইসলামের অর্থ শাখার একজন সক্রিয় সদস্য।

গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল হাই (৪০)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, সে পেশায় পেশায় একজন গ্রাম্য চিকিৎসক। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার অন্যতম সমন্বয়ক মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয় এবং তার মাধ্যমে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে। 
 

আরও সাম্প্রতিক কার্যক্রম