সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
ঢাকা মহানগরীর পল্লবী থানাধীন এলাকা হতে অপহরনের ৩৬ ঘন্টার মধ্যে ভিকটিম উদ্ধারসহ অপহরনকারী ০৪ জন গ্রেফতার। ✱ রাজধানীর পল্লবী এলাকা হতে মেট্রো রেল প্রকল্পের মালামাল চুরির সংঘবদ্ধ চোর চক্রের ২ সদস্য’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ঃ চোরাইকৃত মালামালসহ একটি পিকআপ ও সিএনজি জব্দ। ✱ র‌্যাবের অভিযানে রাজধানীর শ্যামপুর থানা এলাকা হতে ০২ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতারসহ ০১ টি বিদেশী পিস্তল, ০১ টি বিদেশী রিভলবার, ০১ টি ম্যাগাজিন, ০৪ রাউন্ড গুলি এবং ১৬৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার। ✱ র‌্যাব-৭ এর অভিযানে চট্টগ্রাম মহানগরীর পতেঙ্গা এলাকা হতে চোরাইকৃত ১১,৩১০ লিটার ডিজেল উদ্ধারসহ ০১ জন চোরাকারবারী আটক। ✱ র‌্যাব-৭ এর অভিযানে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী এলাকা হতে ০১ টি থ্রি কোয়ার্টার এলজি, ০১ রাউন্ড গুলি, ০১ টি চাকু এবং ০১ টি দা’সহ ০১ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী আটক ✱ র‌্যাব-৭ এর অভিযানে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী এলাকা হতে ০১ টি থ্রি কোয়ার্টার এলজি, ০১ রাউন্ড গুলি, ০১ টি চাকু এবং ০১ টি দা’সহ ০১ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী আটক। ✱ র‌্যাব-১১ এর অভিযানে নারায়ণগঞ্জের বন্দর হতে ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, ০৬ কেজি গাঁজা উদ্ধার। ✱ র‌্যাব-৯, সলিটে এর অভযিানে মৌলভীবাজার জলোর সদর থানা এলাকা হতে ৫৮৬ পসি ইয়াবা’সহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রফেতার। ✱ র‌্যাব-৮ সিপিসি-২ ফরিদপুর ক্যাম্প কর্তৃক ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানা হতে ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক ✱ র‌্যাব-১১ এর অভিযানে সিদ্ধিরগঞ্জ হতে ০১ চাঁদাবাজ গ্রেফতার ✱

সাম্প্রতিক কার্যক্রম

রাজধানীর নিউমার্কেট থানাধীন এ্যালিফেন্ট রোড হতে ব্ল্যাকমেইল মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ ও পর্নোগ্রাফির অভিযোগে অনুপ পোদ্দার’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪।

র‌্যাপিড এ্যাকশন  ব্যাটালিয়ন, র‌্যাব এলিট ফোর্স হিসেবে আত্মপ্রকাশের সূচনালগ্ন থেকেই বিভিন্ন ধরনের নৃশংস ও ঘৃণ্যতম অপরাধ নির্মূলের লক্ষ্যে অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে আসছে। ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফির মতো ঘৃণ্যতম অপরাধ নির্মূলের জন্য র‌্যাবের প্রতিটি সদস্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে নারী ও শিশুদের জন্য একটি নিরাপদ বাসযোগ্য সমাজ তথা দেশ বিনির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।  ২।    এরই ধারাবাহিকতায়, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে র‌্যাব-৪ এর সাইবার সেলের একটি আভিযানিক দল রাজধানীর নিউমার্কেট থানাধীন এ্যালিফেন্ট রোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বø্যাকমেইলের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ ও পর্নোগ্রাফির অভিযোগে মনির খান @ হারুন @ অনুপ পোদ্দার (৪১), জেলা-টাঙ্গাইল’কে গ্রেফতার করা হয়। ৩।    প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত আসামীর প্রকৃত নাম অনুপ পোদ্দার, ব্যক্তিগত জীবনে সে বিবাহিত ও বেসরকারী চাকুরীজীবি। সুস্থ স্বাভাবিক জীবনের আড়ালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিপতœীক হিসেবে, মুসলিম পরিচয়ে, ভুয়া ঠিকানা, অন্যের ছবি ব্যবহার করে ‘মনির খান ও হারুন’ নামে ফেইক আইডি খুলে বিভিন্ন গধঃপয গধশরহম ঝরঃব যেমন পাত্র/পাত্রী চাই, ম্যারিজ মিডিয়া থেকে টার্গেট করেন স্বামী পরিত্যাক্তা বা ডিভোর্সী মেয়েদের। এরপর ধীরে ধীরে সম্পর্কের গভীরতার এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ  মাধ্যমে ঘনিষ্ঠতার এক পর্যায়ে তাদের ইমোশনকে ব্যবহার করে বিভিন্ন স্পর্শকাতর ছবি, ভিডিও গোপনে ধারণ করে শুরু করে বø্যাকমেল। এর প্রথম পর্যায়ে ভিকটিমকে বিভিন্ন হোটেলে দেখা করার কথা বলে, অবৈধ/অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের কথা বলে কিন্তু এতে রাজি না হলে গোপনে ধারন করা ছবি/ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি/ভয়ভীতি দেখিয়ে ৫-৬ লক্ষ টাকা দাবি করত। সমাজে লোক চক্ষুর ভয়ে বাধ্য হয়ে অনেকেই তার সাথে ঘনিষ্ট সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে এবং কেউ কেউ অল্প টাকা দিয়ে রেহাই পেয়েছে বলে জানা যায়। গোপনে ধারনকৃত ভিকটিমদের স্পর্শকাতর ভিডিও/ছবি এবং বিভিন্ন পর্ন ভিডিও তার দ্বারা পরিচালিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গোপন গ্রæপে পোস্ট ও শেয়ার করত। এছাড়া ২০০ (দুইশত) এর  অধিক ভিকটিম নারীর ছবি, ভিডিও সম্বলিত মোবাইল ডিভাইস জব্দ করা হয়।   ৪।     গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন। অদূর ভবিষ্যতে এইরুপ অপরাধীদের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এর অভিযান অব্যাহত থাকবে।   

র‌্যাবের পৃথক অভিযানে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী ও দয়াগঞ্জ এলাকা হতে ১,০৩০ পিস ইয়াবা ও ৩০৭ লিটার চোলাই মদসহ ০৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার; ০১টি মোটরসাইকেল জব্দ।

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিঃ তারিখ আনুমানিক ১৪:৪৫ ঘটিকায় র‌্যাব- ১০ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন সায়েদাবাদ এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে ১,০৩০ (এক হাজার ত্রিশ) পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীর নাম মোঃ রোমান হোসেন (৪২) বলে জানা যায়। এসময় তার নিকট থেকে মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত ০১ মোটরসাইকেল, ০৩টি মোবাইল ফোন ও নগদ- ৩,৬০০/- (তিন হাজার ছয়শত) টাক উদ্ধার করা হয়।     এছাড়া একই তারিখ আনুমানিক ১৫:৫০ ঘটিকায় র‌্যাব- ১০ এর উক্ত আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার গেন্ডারিয়া থানাধীন দয়াগঞ্জ এলাকায় অপর একটি অভিযান পরিচালনা করে ৩০৭ (তিনশত সাত) লিটার দেশীয় তৈরি চোলাই মদসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের নাম ১। মোঃ নুর মোহাম্মদ (৫০) ও ২। বরাআলাম্মা (৫০) বলে জানা যায়। এসময় তাদের নিকট থেকে ০১টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।     প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। তারা বেশ কিছুদিন যাবৎ যাত্রাবাড়ী ও দয়াগঞ্জসহ ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা ও চোলাই মদসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে আসছিল বলে জানা যায়।   

র‌্যাব-৮, সিপিসি-২, ফরিদপুর ক্যাম্প কর্তৃক রাজবাড়ী জেলার রাজবাড়ী সদর থানা হতে হেরোইনসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক ।

র‌্যাব-৮, ফরিদপুর ক্যাম্প এবং র‌্যাব সদর দপ্তর এর গোয়েন্দা বিভাগ যৌথভাবে ১৩/০৯/২০২১ইং তারিখ দুপুরে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, একজন মাদক ব্যবসায়ী কুষ্টিয়া টু রাজবাড়ী রেলপথ ব্যবহার করে রেল যোগে মাদক দ্রব্য হেরোইন এর চালান নিয়ে রাজবাড়ী জেলার উদ্দেশ্যে রওনা করেছে। উক্ত সংবাদ অবহিত হওয়ার পর অত্র ক্যাম্পের একটি বিশেষ আভিযানিক দল রাজবাড়ী জেলার রাজবাড়ী সদর থানাধীন রাজবাড়ী রেল স্টেশন এলাকায় অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে মাদক ব্যবসায়ী আসামী ০১। মোঃ তহিদুল ইসলাম(৫৯), পিতা-মৃত বজলার রহমান, সাং-তেরখাদিয়া, থানা-বোয়ালিয়া, জেলা-রাজশাহীকে আটক করেন। এ সময় তার নিকট হতে ২১৫ (দুইশত পনের) গ্রাম হেরোইন ও মাদক দ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় কাজে ব্যবহৃত ০২টি সীমকার্ডসহ ০১টি মোবাইল ফোন এবং নগদ ২,৫০০/- টাকা জব্দ করা হয়। পরবর্তীতে আসামীর স্বীকারোক্তি থেকে জানা যায় সে একজন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। সে দীর্ঘদিন যাবৎ কুষ্টিয়া টু রাজবাড়ী রেলপথ ব্যবহার করে  উক্ত মাদক দ্রব্য হেরোইন রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন থানা এলাকায় বিক্রয় করে আসছে।

র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০২ জন চাঁদাবাজ গ্রেফতার।

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ বিকাল ১৮:৪৫ ঘটিকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন সাইনবোর্ড পদ্ম এক্সক্লুসিভ লিঃ বাস কাউন্টার এলাকায় চাঁদাবাজ বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ১। মোঃ সোহেল মিয়া (৩৬), ২। মোঃ আরিফুল ইসলাম মজনু (৩৮) কে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের হেফাজত হতে চাঁদাবাজির নগদ ৫,৯০০/- টাকা উদ্ধার করা হয়।     প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, একটি চাঁদাবাজ চক্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন সাইনবোর্ড এলাকায় ঢাকা-চট্রগ্রাম গামী চলাচলরত পরিবহনের চালক ও হেলপারদের গুরুতর আঘাতের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে জোরপূর্বক পরিবহন প্রতি দৈনিক ১০০/- থেকে ২০০/- টাকা করে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করে আসছিল। চাঁদাবাজ দমনে র‌্যাব-১১ এর অভিযান অব্যাহত থাকবে।  

র‌্যাব-৯, সিলেট এর অভিযানে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানাধীন এলাকা থেকে বিদেশী মদ’সহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার।

১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ ২২:৩০ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯, সিপিসি-২ (শ্রীমঙ্গল ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল সিনিঃ এএসপি মোঃ লুৎফর রহমান এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানাধীন শ্রীমঙ্গল পৌরসভার ০১ নং ওয়ার্ডের অন্তগত ‘কুমিল্লা পেড়া ভান্ডারʾ নামক মিষ্টির দোকানের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর হইতে অভিযান পরিচালনা করে ০৮ বোতল বিদেশী ( 1. IMPERIAL BLUE SUPERIOR GRAIN WHISKY 750 ml = 07 pcs 2. ROYAL GREEN DELUXE BLENDED WHISKY 750 ml = 01 pcs) মদসহ তপন ছত্রী @ স্বপন (৪২) পিতা- মৃত মন বাহাদুর ছত্রী, সাং- খাকিয়াচড়া চা বাগান, থানাঃ শ্রীমঙ্গল, জেলা- মৌলভীবাজার’কে গ্রেফতার করে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ২৪(ক) ধারায় মামলা দায়ের করে গ্রেফতারকৃত আসামী ও  জব্দকৃত আলামত মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

র‌্যাব-৯, সিলেট এর অভিযানে মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ থানাধীন এলাকা থেকে বিদেশী প্রফেশনাল গোল্ড মেটাল ডিটেক্টর ফাইন্ডার, স্ক্যানার আন্ডারগ্রাউন্ড লং রেঞ্জ, গোল্ড ডিটেক্টর ডিগার, ডায়মন্ড-সিলভার-কপার-গোল্ড ডিটেক্টর সরঞ্জাম বক্স সহ খাবার স্যালাইন, কসটেপ এবং ০১টি স্কুল ব্যাগ পরিত্যাক্ত অবস্থায়্ উদ্ধার

১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ ১৭:৩০ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯, সিপিসি-২ (শ্রীমঙ্গল ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল সিনিঃ এএসপি মোঃ লুৎফর রহমান এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ থানাধীন ভানুগাছ বাজারের কলেজ রোডস্থ ঠান্ডা মিল প্রোপাইটার: কাজী মামুনূর রশিদ এর মিলের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর ক। ০১ টি বিদেশী ডিটেকক্টর মেশিনের বক্স (বিদেশী প্রফেশনাল গোল্ড মেটাল ডিটেক্টর ফাইন্ডার, স্ক্যানার আন্ডারগ্রাউন্ড লং রেঞ্জ, গোল্ড ডিটেক্টর ডিগার, ডায়মন্ড-সিলভার-কপার-গোল্ড ডিটেক্টর সরঞ্জাম বক্স), খ। খাবার স্যালাইন- ২৪টি, গ। ওরস্যালাইন এন- ১৯টি, ঘ। এনআরজি- ৪৩টি, ঙ। কসটেপ- ০৫ টি, চ। ব্যাগ- ০১টি, ছ। ইউজার ম্যানুয়েল বই- ০১টি পরিত্যাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে জব্দকৃত আলামত সমূহ সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর কার্যক্রম চলমান।

র‌্যাব-৭ এর অভিযানে কক্সবাজার জেলার উখিয়া এলাকা থেকে আনুমানিক ৩০ লক্ষ টাকা মূল্যের ১০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, মাদক বিক্রয়ের নগদ ২৮,৭০,১০০ টাকা, বাংলাদেশী জাল ৩,০০,০০০ টাকা এবং মায়ানমারের মুদ্রা ৩,০৫,০০০ কিয়াট উদ্ধারসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক।

র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, কক্সবাজার জেলার উখিয়া এলাকায় কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে গত ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ ১৮০০ ঘটিকায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর একটি আভিযানিক দল বর্ণিত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে আসামী মোঃ জয়নাল আবেদীন, পিতা- আব্দুল হক, সাং- পশ্চিম থাইংলাখী, থানা- উখিয়া, জেলা- কক্সবাজার’কে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীর দেহ তল্লাশী করে নিজ হেফাজতে থাকা ব্যাগ হতে ১,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ও মাদক বিক্রয়ের নগদ ২৮,৭০,১০০ টাকা উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়।     পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃত আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তার দেওয়া তথ্যমতে গত ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ ০৮০০ ঘটিকায় কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানাধীন দক্ষিন জমিদার পাড়া, বালুখালী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে পলাতক আসামী ১। মোঃ জাহাঙ্গীর (৩০) ও ২। মোঃ মাহমুদুল হক (৩৪), উভয় পিতা- মৃত সৈয়দ আলম, সাং- বালুখালী, থানা- উখিয়া, জেলা- কক্সবাজারদের বসত ঘর তল্লাশী করে ৯,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, বাংলাদেশী জাল ৩,০০,০০০ টাকা এবং মায়ানমারের মুদ্রা ৩,০৫,০০০ কিয়াট উদ্ধার করা হয়।     গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে আরোও জানা যায়, সে দীর্ঘ দিন যাবৎ পলাতক আসামীদের সহযোগিতায় মায়ানমার হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে তা কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত সর্বমোট ইয়াবা ট্যাবলেট ১০,০০০ পিস যার আনুমানিক মূল্য ৩০ লক্ষ টাকা।  

রাজধানীর শাহআলী এলাকা হতে মেট্রো রেল প্রকল্পের মালামাল চুরির সংঘবদ্ধ চোর চক্রের ১১ সদস্য’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ঃ চোরাইকৃত ১৮ টি আইবীমসহ ০১ টি ট্রাক ও প্রাইভেটকার জব্ধ।

ঢাকা মহানগরীর শাহআলী থানাধীন এলাকায় সংঘবদ্ধ একটি চোরাকারবারী চক্র দীর্ঘদিন যাবৎ মেট্রো রেল প্রকল্প ছাড়াও সরকারের আরো গুরুত্বপূর্ন প্রকল্পের আইবীম ছাড়াও অপ্রয়োজনীয় লোহা, ইস্পাত, তার, মেশিন কৌশলে চুরি করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অতি চতুর চোরাই দল বিভিন্ন পন্থায় চোরাই দ্রব্য দ্রæত খন্ড খন্ড করে কেটে তা বিভিন্ন ভাঙ্গারী ও চাহিদাকারী ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় করে আসছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে ১৩/০৯/২০২১ তারিখ ১৩.৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানীর শাহআলী থানাধীন বেরিবাধ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চোরাইকৃত ১৮ টি আইবীম যার ওজন ৪০ টন (বাজার মূল্য ২৫ লক্ষ টাকা), ০১ টি ট্রাক, ০১ টি প্রাইভেটকার, নগদ ৪২৩০০০/-টাকা ও ১৬ টি মোবাইলসহ সংঘবদ্ধ চোরাকারবারী চক্রের নিম্নোক্ত ১১ জন সদস্য’কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়ঃ মূল চোরাই দলঃ (ক)    মোঃ মোতালেব শিকদার (৫৪), জেলা- মাদারীপুর। (খ)    মোঃ নজরুল ইসলাম (৪৪), জেলা- পটুয়াখালী।                 (গ)    মোঃ হাবিব উল্লাহ ভুঁইয়া (৪৩), জেলা- ব্রাহ্মনবাড়ীয়া।  (ঘ)    মোঃ ওয়ালীউল্লাহ ওরফে বাবু (৪১), জেলা- ব্রাহ্মনবাড়ীয়া। দালাল দলঃ (ঙ)    সুমন ঘোষ (৪৩), জেলা- ঢাকা। (চ)    আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪৮), জেলা- গাজীপুর। (ছ)    মোঃ আঃ ছাত্তার (৫৮), জেলা- ঢাকা।                     (জ)    মোঃ আশিক (৩১), জেলা- ঢাকা (ঝ)    মোঃ আমজাদ হোসেন রাজন (৩৬), জেলা- শরীয়তপুর। চোরাই দ্রব্য ক্রয়কারী ইচ্ছুক দলঃ (ঞ)    মোঃ মনির (৪০), জেলা- জামালপুর। (ট)    মোঃ রিয়াজুল (২০), জেলা- গোপালগঞ্জ।                             প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামীরা পরষ্পরের যোগসাজসে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা মেট্রোরেল প্রকল্প ছাড়াও আরো গুরুত্বপূর্ন প্রকল্পের আইবীম ছাড়াও অপ্রয়োজনীয় লোহা, ইস্পাত, তার, মেশিন কৌশলে চুরির ঘটনার সাথে জড়িত মর্মে স্বীকারোক্তি প্রদান করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় যে, তারা একটি বিশেষ সংঘবদ্ধ চোরাকারবারী চক্রের সাথেও জড়িত। ধৃত আসামীরা পরস্পর যোগসাজোশে কিছুদিন যাবত ঢাকা মেট্রোরেল প্রকল্প ছাড়াও আরো গুরুত্বপূর্ন প্রকল্পের আইবীম ছাড়াও অপ্রয়োজনীয় লোহা, ইস্পাত, তার, মেশিন কৌশলে চুরি করে খন্ড খন্ড করে কেটে তা বিভিন্ন ভাঙ্গারী ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রয় করে আসছিল।  অপরাধের কৌশলঃ গত কয়েক বছর যাবত ঢাকাসহ আশপাশ জেলা সমূহে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প পরিচালিত হয়ে আসছে। উক্ত প্রকল্প সমূহের কার্যক্রম চলাকালীন সময়ে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন উপকরনস্তুপ আকারে থাকা কালে একটি সংঘবদ্ধ চোরাকারবারি দল সু-কৌশলে সুবিধা বুঝে সুযোগ মতো চুরি করে তাদের পছন্দ মতো গোপন একটি জায়গায় নিয়ে এসে সেগুলো কে সহজে বহনযোগ্য করে বিভিন্ন ক্রেতাদের নিকট তা বিক্রয় করে থাকে। তাদের উক্ত চোরাই চক্রটি মূলত এই চুরির কাজটি নি¤œবর্ণিত ধাপে সম্পন্ন করে থাকেঃ তথ্য প্রদানঃ প্রথমে এই চোরাকারবারি চক্রটি সু-কৌশলে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করে এবং সেই অনুযায়ী চুরির পরিকল্পনা করে থাকে। সাহায্যকারী ব্যক্তিঃ পরবর্তীতে চক্রটি প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রজেক্টের আরোও অন্যান্য লোকজনের সহায়তায় বিভিন্ন উপকরন সুবিধা বুঝে সুযোগ মতো চুরি করে তাদের পছন্দ মতো গোপন একটি জায়গায় নিয়ে লুকিয়ে রাখে।  দালাল (বিভিন্ন ধাপ)ঃ  এই ধাপে একটি গ্রুপ চোরাইকৃত উপকরন সমূহ পরিবর্তন পরিবর্ধন করে সহজে বহনযোগ্য করে থাকে। পরবর্তীতে উক্ত মালামাল সমূহ ক্রয় করে এরূপ ক্রেতাদের সাথে প্রথম ধাপের চোরাই দলের সাথে যোগাযোগ করে দেয়।  ইচ্ছুক ক্রেতাঃ এই ধাপে মূলত চোরাইকৃত মালামাল ক্রয়-বিক্রয়ের কাজটি সম্পন্ন করা হয়ে থাকে। এতে চোরাই চক্রটি তাদের চোরাইকৃত পরিবর্তন ও পরিবর্ধনকৃত মালামাল তাদের পূর্বে থেকে নির্ধারিত ক্রেতাদের নিকট একটি নিদিষ্ট মূল্যের বিনিময়ে বিক্রয় করে থাকে। চোরাই চক্রসহ অন্যান্য চক্রের আরও অনেক পলাতক আসামী রয়েছে। তাদের গ্রেফতারে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।  

র‌্যাব-৯, সিলেট এর অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানাধীন এলাকা থেকে গাঁজাসহ ০২ জন পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ।

১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ ১৪:৩৫ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯, সিপিসি-২ (শ্রীমঙ্গল ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল সিনিঃ এএসপি মোঃ লুৎফর রহমান এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানাধীন নোয়াপাড়া ইউনিয়নের কররা গ্রামস্থ সিলেট টু ঢাকা হাইওয়ে রাস্তার পূর্ব পাশের্^ এসএস ইসপ্রিং মিল লিমিটেড এর সামনে অভিযান পরিচালনা করে ক। গাঁজা= ০৫ কেজি ৫০ গ্রাম, খ।  মোবাইল= ০১টি, গ। সীমকার্ড= ০১টি জব্দ পূর্বক ধৃত আসামী ১। মোঃ জিলন মিয়া (২৪), পিতা- মৃত আব্দুর রশিদ মিয়া, সাং- উত্তর সুরমা গোয়াছনগর, থানা- মাধবপুর, জেলা- হবিগঞ্জ, ২। মোঃ শাহজাহান মিয়া (৪০), পিতাঃ মৃত আলফু মিয়া, সাং- পরমহনান্দপুর, থানাঃ মাধবপুর, জেলাঃ হবিগঞ্জদ্বয়’কে গ্রেফতার করে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর ৩৬(১) এর টেবিল ১৯(খ)/৪১ ধারায় মামলা দায়ের করে গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয় ও  জব্দকৃত আলামত হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

র‌্যাব - ৯ এর অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট থানাধীন এলাকা থেকে মারামারী মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত একজন পলাতক আসামী গ্রেফতার।

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ ১০:৪৫ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯, সিপিসি-১ (হবিগঞ্জ ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল লেঃ কমান্ডার মোহাম্মদ নাহিদ হাসান এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট থানাধীন নতুন ব্রিজ এলাকা হইতে অভিযান পরিচালনা করে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানার সিআর মামলা নং- ২৮৫/২০ ধারা; ৩২৩/৩২৫/৩০৭/৩৫৪/৪৪৭/৪০৬/১১৪/৩৪ পেনাল কোড মূলে ধৃত আসামী ১। মোঃ আব্দুল মুতাব্বির@দুলাল (৩০), পিতা- মৃত আব্দুল কাদির, সাং-ফদ্রখলা, থানা- বাহুবল, জেলা- হবিগঞ্জ’কে গ্রেফতার করে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার লক্ষ্যে গ্রেফতারকৃত আসামী’কে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।