অপরাধী দমন ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)

সাম্প্রতিক কার্যক্রম :
রাজধানীর চকবাজার ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় নকল কসমেটিক্স ও অস্বাস্থ্যকর খাবার উৎপাদন, মজুদ ও বিক্রি করায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৫ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা। ✱ ঢাকা হতে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেনে চাঞ্চল্যকর খুনসহ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত ০৫ জন পেশাদার ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৪। ✱ ঢাকা জেলার আশুলিয়া হতে ১২ বছরের শিশু অপহরণের ০৪ ঘন্টা পর ভূক্তভোগীকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৪; অপহরণকারী চক্রের ১১ সদস্য মাদক ও দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার। ✱ র‌্যাব-৯, সিলেট এবং এ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (সহকারী কমিশনার ভূমি), হবিগঞ্জ এর যৌথ অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার হবিগঞ্জ সদর থানাধীন এলাকার ০১ টি বে-সরকারী হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করে = ৩৫,০০০/- টাকা জরিমানা আদায়। ✱ টিকটক চক্রের খপ্পরে পড়ে অপহৃত ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থেকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৪ঃ অপহরনকারী চক্রের ০১ সদস্য গ্রেফতার। ✱ র‌্যাব-৯, সিলেট এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, সিলেট এর যৌথ অভিযানে সিলেট জেলার জৈন্তাপুর থানাধীন এলাকায় “প্রদত্ত মূল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রæত পণ্য বা সেবা প্রদান না করিবার অপরাধে” ০৫ টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা। ✱ কক্সবাজার হোটেলে চাঞ্চল্যকর নারী হত্যার প্রধান আসামী সাগরকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ✱ র‌্যাব-১১ এর পৃথক অভিযানে রূপগঞ্জ হতে ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী এবং ডাকাতি মামলার ০১ জন পলাতক আসামী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাবের অভিযানে ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকা হতে ২০ লক্ষ টাকা মূল্যের হেরোইনসহ ০২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। ✱ র‌্যাব-৯ এর অভিযানে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানাধীন এলাকা হইতে ৭৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার। ✱

চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন, বিপিএম, পিপিএম

মহাপরিচালক, র‌্যাব ফোর্সেস
র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)

আমাদের জানুন

বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ। আমাদের উন্নতির পথে যে সকল বাধা বিপত্তি রয়েছে তার মধ্যে, অস্থিতিশীল আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অন্যতম। এরকম একটি পরিস্থিতিতে যখন সমাজের প্রত্যেকটা মানুষ অনিশ্চিয়তার মাঝে ভুগছিল, তখন পুলিশ বাহিনীর কার্যক্রমকে আরো গতিশীল ও কার্যকর করার লক্ষ্যে সরকার একটি এলিট ফোর্স গঠনের পরিকল্পনা করে। ক্রমান্বয়ে সভা-সমন্বয়, আলোচনা ও গবেষনার পর সরকার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্ববধানে  বাংলাদেশ পুলিশের অধীনে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন সংক্ষেপে র‌্যাব ফোর্সেস নামে একটি এলিট ফোর্স গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। গত ২৬ মার্চ ২০০৪ তারিখে জাতীয় স্বাধীনতা দিবস প্যারেডে অংশ গ্রহনের মাধ্যমে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) জনসাধারনের সামনে আত্মপ্রকাশ করে। জন্মের পরপরই এই ফোর্সের ব্যাটালিয়নসমূহ সাংগঠনিক কর্মকান্ডে ব্যস্ত থাকে এবং স্ব স্ব এলাকা সম্পর্কে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ শুরু করে। এর মাঝে প্রথম অপারেশনাল দায়িত্ব পায় ১৪ এপ্রিল ২০০৪ তারিখে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান-রমনা বটমুলে নিরাপত্তা বিধান করার জন্য । এর পর আবার র‌্যাব মূলত তথ্য সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত ছিল। গত ২১ জুন ২০০৪ থেকে র‌্যাব ফোর্সেস পূর্ণাঙ্গভাবে অপারেশনাল কার্যক্রম শুরু করে।

র‌্যাবের দায়িত্ব সমূহ

  • অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা দায়িত্ব।
  • অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ, বিস্ফোরক এবং এ জাতীয় অন্যান্য বস্তু উদ্ধার।
  • অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার।
  • আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করা।
  • সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী সম্পর্কে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করা।
  • সরকার নির্দেশিত যে কোন অপরাধের তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করা।
  • সরকার নির্দেশিত যে কোন জাতীয় দায়িত্ব পালন করা।

র‌্যাব কর্তৃক প্রদত্ত পরামর্শ

       পরিবার ও সমাজকে নিরাপদ রাখতে আপনাদের যা করণীয়

  • জমি জমা বা টাকা-পয়সা সংক্রান্ত কোন অভিযোগ র‌্যাব কর্তৃক গ্রহণ করা হয় না ।
  • ব্যক্তিগত বা পারিবারিক কোন সমস্যা র‌্যাব কর্তৃক গ্রহণ করা হয় না।
  • কোন অভিযোগ করার পূর্বে আপনার এলাকার জন্য দায়িত্বপূর্ন র‌্যাব ব্যাটালিয়ন/ক্যাম্প সম্পর্কে জানুন ও যথাযথ র‌্যাব ব্যাটালিয়ন/ক্যাম্পে অভিযোগ করুন।
  • আপনার এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের সম্পর্কে র‌্যাব কে তথ্য প্রদান করে র‌্যাবকে সহযোগীতা করুন । আপনার পরিচয় সম্পূর্ন গোপন রাখা হবে।
  • বেশী করে গাছ লাগান অক্সিজেনের অভাব তাড়ান।
  • ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের আগুন নিয়ে খেলতে দিবেন না।
  • যাত্রা পথে অপরিচিত লোকের দেওয়া বিছু খাবেন না । ভ্রমণকালে সহযোগী বা অন্য কাহারো নিকট হইতে পান, বিড়ি, সিগারেট, চা বা অন্য কোন পানীয় খাওয়া/গ্রহণ করা হইতে বিরত থাকা আবশ্যক।

টিভিসি

সাম্প্রতিক কার্যক্রম

রাজধানীর চকবাজার ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় নকল কসমেটিক্স ও অস্বাস্থ্যকর খাবার উৎপাদন, মজুদ ও বিক্রি করায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৫ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা।

গত ২৫/০৯/২০২১ খ্রিঃ তারিখ ১২:০০ ঘটিকা হতে ২২:৪৫ ঘটিকা পর্যন্ত র‌্যাব এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব মোঃ মাজহারুল ইসলাম ও র‌্যাব-১০ এর সমন্বয়ে আভিযানিক দল রাজধানীর চকবাজার ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত কার্যক্রম সম্পন্ন করে। এসময় বিএসটিআই এর প্রতিনিধির উপস্থিতিতে উক্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত চকবাজার ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় অনুমোদনহীন নকল কসমেটিক্স, ভেজাল ও অস্বাস্থ্যকর খাবার উৎপাদন মজুদ ও বিক্রি করার অপরাধে আকিব এন্ড ব্রাদার্সকে ৬,০০,০০০/- (ছয় লক্ষ) টাকা, হাজী আব্দুল মজিদ ষ্টোরকে ৫,০০,০০০/- (পাঁচ লক্ষ) টাকা, অপরনা ট্রেডিং এজেন্সিকে ৩,০০,০০০/- (তিন লক্ষ) টাকা, পারভেজ ফুড প্রোডাক্টকে ২৫,০০০/- (পঁচিশ হাজার) টাকা, হিমেল ফুড প্রোডাক্টকে ২০,০০০/- (বিশ হাজার) ও তালহা ফুড প্রোডাক্টকে ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা করে সর্বমোট ১৫,৪৫,০০০/- (পরের লক্ষ পয়তাল্লিশ হাজর ) টাকা জরিমানা প্রদান করে। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নির্দেশে ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকার ভেজাল কসমেটিক্স জব্দ করা হয়।     প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় যে, বেশ কিছুদিন যাবৎ এই অসাধু ব্যবসায়ীরা নকল কসমেটিক্স ও অস্বাস্থ্যকর খাবার উৎপাদন মজুদ ও বিক্রি করে আসছিল বলে জানা যায়।  

ঢাকা হতে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেনে চাঞ্চল্যকর খুনসহ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত ০৫ জন পেশাদার ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৪।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিঃ রাত অনুমান ০৯.৫০ ঘটিকার সময় ঢাকা হতে জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেন জামালপুর স্টেশনে পৌঁছালে ট্রেনের যাত্রীরা ট্রেনের ছাদ থেকে রক্ত গড়িয়ে পড়তে দেখেন। এই তথ্যের ভিত্তিতে ট্রেনের ছাদ থেকে গুরুতর আহত তিনজনকে উদ্ধার করা হয়। আহতদের তাৎক্ষণিক হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার দুজনকে মৃত ঘোষণা করে। যাত্রীদের ভাষ্যমতে, ডাকাতির মাধ্যমে তাদের হত্যা করা হয়। উক্ত ঘটনায় ময়মনসিংহ জেলার রেলওয়ে থানায় একটি নিয়মিত মামলা রুজু হয় যার মামলা নং-০৫/১৩ তারিখ- ২৪/০৯/২০২১খ্রিঃ ধারা- ৩৯৬ পেনাল কোড। এই ঘটনা বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচার হলে তা ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে।  উক্ত চাঞ্চল্যকর ও লোমহর্ষক ঘটনা সংঘটনের সাথে সাথেই র‌্যাব-১৪, ময়মনসিংহ গোয়েন্দা তৎপরতা শুরু করে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন, পারিপার্শ্বিকতার বিচার ও নিহতের বিভিন্ন বিষয় পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ করে নিবিড় তদন্তপূর্বক র‌্যাব-১৪ ঘটনার রহস্য উন্মোচন করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-১৪ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খুনসহ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ১। আশরাফুল ইসলাম স্বাধীন (২৬)-কে ময়মনসিংহের শিকারীকান্দা এলাকা থেকে বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে অদ্য ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিঃ তারিখ রাত আনুমানিক ০১.০০ ঘটিকার সময় গ্রেফতার করা হয় এবং তার কাছ থেকে লুন্ঠন হওয়া মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে চেইন অপারেশনের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত অপর আসামী ২। মাকসুদুল হক রিশাদ (২৮), পিতা-মন্জু, সাং-বাঘমারা, ৩। মোঃ হাসান (২২), পিতা-সাব্বির খান, সাং-বাঘমারা, ৪। রুবেল মিয়া (৩১),  পিতা-মৃত আশরাফ আলী সাং-ধামাই, ৫। মোহাম্মদ (২৫), পিতা- সাব্বির খান, সাং-বাগমারা, সর্ব থানা-কোতোয়ালী, জেলা-ময়মনসিংহদের গ্রেফতার করা হয় এবং তাদের কাছ থেকে লুন্ঠিত মোবাইল উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে, তাদের দেখানো জায়গা থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্য পলাতক আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।  গ্রেফতারকৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, ট্রেনে ডাকাতির উদ্দেশ্যে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ০৪(চার) জন পেশাদার ডাকাত দেওয়ানগঞ্জগামী কমিউটার ট্রেনে উঠে। রিশাদ, হাসান এবং স্বাধীন টঙ্গী স্টেশন থেকে তাদের সাথে যুক্ত হয়। ট্রেনটি ফাতেমা নগর স্টেশনে থামলে তাদের সাথে যোগ দেয় মোহাম্মদ ও তার একজন সহযোগী। ট্রেন স্টেশন ছেড়ে চলতে শুরু করলে তারা ইঞ্জিনের পরের বগি’র ছাদে বসে থাকা যাত্রীদের মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোন লুট করা শুরু করে। ডাকাতির একপর্যায়ে ভিকটিম মৃত মোঃ সাগর মিয়া ও নাহিদ বাধা দিলে তাদের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু হয় এবং ডাকাতরা তাদের হাতে থাকা অস্ত্র দিয়ে ভিকটিমদ্বয়ের মাথায় এলোপাথারীভাবে আঘাত করে।  মৃত সাগর ও নাহিদ যখন আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ট্রেনের ছাদে লুটিয়ে পড়ে তখন ডাকতরা ময়মনসিংহ রেলস্টেশনে ঢোকার পূর্বে সিগন্যালে ট্রেনের গতি কমলে ট্রেন হতে নেমে যায়।  প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি এরা একটি সংঘবদ্ধ চক্র এবং এই চক্র নিয়মিতভাবে ডাকাতি ও ছিনতাই করে আসছে। এরা ঢাকার কমলাপুর, এয়ারপোর্ট ও টঙ্গী রেলস্টেশন হতে ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ট্রেনে উঠত এবং তাদের কিছু সহযোগী গফরগাঁও ফাতেমা নগর স্টেশন হতে ট্রেনে উঠে সম্মিলিতভাবে ডাকাতি ও ছিনতাই করে ময়মনসিংহ স্টেশনে নেমে যেত। ঘটনার দিন তারা ছিনতাইয়ের পরিবর্তে ডাকাতির পরিকল্পনা করে। তারা ছোট ছোট উপ-গ্রæপে বিভক্ত হয়ে ডাকাতি ও ছিনতাই করত। এই ছোট ছোট উপ-গ্রæপগুলো কেউ টার্গেট শনাক্ত করত, কেউ নিরাপত্তার বিষয় দেখত, কেউ লুন্ঠিত মোবাইল ও অন্যান্য লুন্ঠিত মালামাল সংগ্রহ করে বিক্রি করত আর বাকীরা সরাসরি ডাকাতির কাজে সম্পৃক্ত থাকত। এই চক্রটি তাদের ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন অস্ত্র ময়মনসিংহ রেলওয়ে স্টেশনের রেললাইনের বিভিন্ন স্থানে তাদের পূর্ব-নির্ধারিত জায়গায় লুকিয়ে রাখত।  উক্ত ঘটনায় গ্রেফতারকৃত রিশাদ, স্বাধীন, মোহাম্মদ ও অজ্ঞাতনামা কয়েকজন সরাসরি ডাকাতির কাজে সম্পৃক্ত ছিল, হাসান টার্গেট শনাক্তের কাজে যুক্ত ছিল, রুবেল লুন্ঠিত মোবাইল ও অন্যান্য লুন্ঠিত মালামাল স্বল্পমূল্যে এই চক্রের কাছ থেকে সংগ্রহ করত এবং অন্যদের কাছে বেশী মূল্যে বিক্রি করে মুনাফা লাভ করত। পাশাপাশি সে এই চক্রের পৃষ্ঠপোষক বলে জানা যায়। উল্লেখ্য, রিশাদ এই সংঘবদ্ধ চক্রের মূল হোতা। তার নামে ময়মনসিংহ রেলওয়ে থানার মামলা নং-০২/৩০ তাং-০৯/১১/২০১৯খ্রিঃ ধারা-৩৯২ দন্ডবিধি ও ময়মনসিংহ সদর থানার মামলা নং-২২ তাং-০৫/১০/২০১২খ্রিঃ ধারা-১৯৯০ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯(১) এর ১(ক) মামলা রয়েছে এবং বিভিন্ন মেয়াদে সে ০২ বছরের অধিক সময় কারাগারে ছিল।         ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।    

ঢাকা জেলার আশুলিয়া হতে ১২ বছরের শিশু অপহরণের ০৪ ঘন্টা পর ভূক্তভোগীকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৪; অপহরণকারী চক্রের ১১ সদস্য মাদক ও দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ আনুমানিক সকাল ১১.৪০ ঘটিকার সময় আশুলিয়া এলাকা থেকে ১২ বছরের শিশু অপহৃত হয়। প্রাপ্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৪ এর আভিযানিক দল ২৫/০৯/২০২১ তারিখ বিকাল ০৩.৪৫ ঘটিকার সময় সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করে আশুলিয়া থানাধীন আরিয়ার মোড় এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে অপহৃত শিশুকে উদ্ধারপূর্বক ৩০০ পিস ইয়াবা, ৪০০ গ্রাম গাঁজা, ০৪ লিটার চোলাই মদ, ০২ টি গিয়ার চাকু, ০২ টি গাঁজা সেবনের কলকি এবং ০১ টি হেমারসহ অপহরণকারী চক্রের নিম্নোক্ত ১১ সদস্য’কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়ঃ ক।    মোঃ মিলন হোসেন হৃদয় (২৪), জেলা- কুষ্টিয়া। খ।    মোঃ আরিফ (২১), জেলা- ঢাকা। গ।    মোঃ মেহেদী হাসান (১৯), জেলা- ঢাকা। ঘ।    মোঃ সোহাগ খান (১৯), জেলা- ঢাকা। ঙ।    মোঃ আবু হাসনাত (১৯), জেলা- ঢাকা। চ।    মোঃ শাওন ইসলাম (২০), জেলা- ঢাকা। ছ।    মোঃ আজম আলী (২০), জেলা- ঢাকা। জ।    মোঃ সুমন ইসলাম (১৯), জেলা- ঢাকা। ঝ।    মোঃ রবিন (২২), জেলা- ঢাকা। ঞ।    আব্দুল আহাদ (২০), জেলা- জামালপুর। ট।    মোঃ রাজু (২০), জেলা- খুলনা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামীরা অভ্যাসগত অপরাধী। তাদের প্রত্যেকের নামে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। আসামীরা মূলত মাদক সেবী। অপহৃত ভিকটিম আশুলিয়া থানাধীন একটি মাদ্রাসায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে অধ্যয়নরত। ভিকটিম মাদ্রাসায় যাতায়াতকালে পথিমধ্যে ১ নং আসামী মোঃ মিলন হোসেন হৃদয় (২৪) তার অন্যান্য উচ্ছৃংখল মাদকাসক্ত সহযোগীদের নিয়া  প্রায়ই  উত্ত্যক্ত করে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় ২৫/০৯/২০২১ তারিখ সকাল অনুমান ১১.৪০ ঘটিকার সময় ভিকটিম বাসা হতে মাদ্রাসায় পায়ে হেটে যাওয়ার সময় আশুলিয়া থানাধীন শিকদারের মোড় এলাকা হতে পূর্ব পরিকল্পনা মতে পরস্পর যোগসাজশে মূল অপহরণকারী ১ নং আসামী মোঃ মিলন হোসেন হৃদয় (২৪) ও ২ নং আসামী মোঃ আরিফ (২১) মোটরসাইকেল যোগে এসে ধারালো চাকু দ্বারা ভয়-ভীতি দেখিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক পল্লী বিদ্যুৎ, নবীনগর বাসষ্ট্যান্ডসহ আশে পাশের এলাকায় প্রায় ৪৫ মিনিট যাবত ঘুরিয়ে আশুলিয়া থানাধীন আরিয়ার মোড় এলাকায় একটি নির্মানাধীন টিনশেড বাড়ীর একটি কক্ষে আটকে রাখে এবং বিভিন্ন ধরনের দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে শ্লীলতাহানি করে এবং অপহরণে অপর সহযোগীরা বর্ণিত কক্ষে এসে মদ ও অন্যান্য নেশা জাতীয় দ্রব্যাদি সেবন করে ভিকটিমের সাথে করুচীপূর্ণ অশোভন আচরণ করে         উক্ত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।   

র‌্যাব-৯, সিলেট এবং এ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (সহকারী কমিশনার ভূমি), হবিগঞ্জ এর যৌথ অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার হবিগঞ্জ সদর থানাধীন এলাকার ০১ টি বে-সরকারী হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করে = ৩৫,০০০/- টাকা জরিমানা আদায়।

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ ১১:০০ হতে ১৪:০০ ঘটিকা পর্যন্ত র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯, সিপিসি-১ (হবিগঞ্জ ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল লেঃ কমান্ডার মোহাম্মদ নাহিদ হাসান ও জনাব মোঃ ইয়াছিন আরাফাত রানা, এ্যাক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট (সহকারী কমিশনার ভূমি), হবিগঞ্জ সদর, হবিগঞ্জ এর নেতৃত্বে হবিগঞ্জ জেলার হবিগঞ্জ সদর থানাধীন এলাকায় অবস্থিত ‘‘মুন জেনারেল হাসপাতাল’’ ও হাসপাতালে নিয়োগকৃত ডাক্তার কর্তৃক অন্যের পরিচয় পত্র ব্যবহার করায় ১। মুন জেনারেল হাসপাতাল = ১০,০০০/- টাকা ২। ডাঃ তাসনিম সুলতানা (২৮) = ২৫,০০০/-টাকাসহ সর্বমোট = ৩৫,০০০/-টাকা জরিমানা আদায় করা হয় এবং জরিমানাকৃত টাকা সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়েছে।  

টিকটক চক্রের খপ্পরে পড়ে অপহৃত ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থেকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৪ঃ অপহরনকারী চক্রের ০১ সদস্য গ্রেফতার।

গত ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রী তার কাফরুল এর বাসা থেকে স্কুলে যাবার কথা বলে বের হয়ে আর বাসায় ফেরেনি মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার পিতা। কয়েকদিন অতিবাহিত হওয়ার পর তার কন্যা বাড়িতে ফেরত না আসায় পরবর্তীতে ভুক্তভোগীর পিতা র‌্যাব-৪ বরাবর একটি অভিযোগ দাখিল করে। যার প্রেক্ষিতে র‌্যাবের একটি দল এটির ছায়াতদন্ত শুরু করে।     এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৪ এর উক্ত অভিযানিক দল গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাত ১০ঃ৩০ ঘটিকা হতে ২৬ সেপ্টেম্বর ১১ঃ৩০ পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে অপহৃত ভিকটিম’কে উদ্ধারপূর্বক অপহরণকারী চক্রের অন্যতম হোতা রায়হান হোসেন (২২), জেলা- লক্ষীপুর’কে গ্রেফতার করতে করতে সমর্থ হয়।          প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, অপহরণকারীরা একটি টিকটক গ্রæপের সদস্য। এই গ্রæপে ৭/৮ জন সদস্য রয়েছে যারা ঘন ঘন লাইভে এসে একে অপরের সাথে বাক্য বিনিময় এবং তথ্য আদান প্রদান করে। উক্ত গ্রæপের অন্যতম সদস্য ঢাকার নর্দায় আজিজ সড়কে অবস্থানকারী গ্রেফতারকৃত রায়হান, পলাতক রবিন ও খোকন। রায়হান একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে গাড়ি চালাতো। জিজ্ঞাসাাবাদে সে জানায় যে, নারায়ণগঞ্জে তার স্ত্রী ও সন্তান আছে। অনুসন্ধানে জানা যায়, খোকন অন্য একটি বেসরকারী কোম্পানিতে কাজ করে এবং রবিন নর্দায় একটি সেলুনে কাজ করে। উক্ত টিকটক গ্রæপের আরো বেশ কয়েকজন সদস্যের নাম পাওয়া যায়। এই টিকটক গ্রæপের অন্যতম দুইজন সদস্য মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী বলে জানা যায়। জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় যে, তারা স্কুলপড়ুয়া উঠতি বয়সী মেয়েদের প্রেমের প্রলোভন দেখিয়ে বিপথে পরিচালিত করতো। তারা অত্যন্ত ধুরন্দর প্রকৃতির। উক্ত টিকটক গ্রæপের সদস্যরা নানা অপকর্মে লিপ্ত। তারা টিকটকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেনামী পরিচয় ব্যবহার করত। অপহৃত ভুক্তভোগী বেশ কিছু দিন ধরে এই টিকটক গ্রæপের সাথে যুক্ত ছিল। নিখোঁজ হওয়ার দিন অপহৃত ভুক্তভোগী বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার কথা বলে বের হয় এবং গ্রেপ্তারকৃত রায়হান বিভিন্ন প্রলোভনে ভুলিয়ে তাকে নর্দায় আজিজ রোডের একটি ভাড়া করা বাসায় আটকে রাখে। বৈশাখীর পরিবার তাকে খুঁজে পেতে পুলিশের শরণাপন্ন হয়েছে জানতে পেরে বৈশাখীকে সুকৌশলে উক্ত ভাড়া করা বাড়ি থেকে বের করে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পাঠিয়ে দেয় রায়হান।     উক্ত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন। অদূর ভবিষ্যতেও এইরুপ শিশু অপহরণকারী চক্রের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এর জোড়ালো অভিযান অব্যাহত থাকবে।  

র‌্যাব-৯, সিলেট এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, সিলেট এর যৌথ অভিযানে সিলেট জেলার জৈন্তাপুর থানাধীন এলাকায় “প্রদত্ত মূল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রæত পণ্য বা সেবা প্রদান না করিবার অপরাধে” ০৫ টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা।

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ ১৩:০০ হতে ১৫:০০ ঘটিকা পর্যন্ত র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯, সিপিএসসি (ইসলামপুর ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ সামিউল আলম এবং এএসপি তুহিন রেজা ও জনাব মোঃ আমিরুল ইসলাম মাসুদ, সহকারী পরিচালক, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, জেলা কার্যালয়, সিলেট এর নেতৃত্বে সিলেট জেলার জৈন্তাপুর থানাধীন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ২০০৯ সালের জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪৫ ধারা মোতাবেক “প্রদত্ত মূল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রæত পণ্য বা সেবা প্রদান না করিবার অপরাধে” ক। জাহাঙ্গীর ষ্টোর = ২,০০০/-(দুই হাজার) টাকা, খ। শহীদ ষ্টোর = ২,০০০/-(দুই হাজার) টাকা, গ। সিদ্দিক এন্ড ট্রেডার্স = ৩,০০০/- (তিন হাজার) টাকা, ঘ। কবির ভ্যারাইটিজ ষ্টোর = ৫,০০০/- (পাঁচ হাজার) টাকা ঙ। শ্যামল ষ্টোর = ১০,০০০/- (দশ হাজার) টাকা; সর্বমোট = ২২,০০০/- (বাইশ হাজার) টাকা জরিমানা আদায় করা হয় এবং জরিমানাকৃত টাকা সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়েছে।

কক্সবাজার হোটেলে চাঞ্চল্যকর নারী হত্যার প্রধান আসামী সাগরকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

অদ্য ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ আনুমানিক ১১:৪৫ ঘটিকায় র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল র‌্যাব সদর দপ্তর ইন্টেলিজেন্স উইং এর সহায়তায় রাজধানী ঢাকার যাত্রাবাড়ী থানাধীন সায়েদাবাদ বাসস্ট্যান্ড টোলপ্লাজা এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে কক্সবাজার সদর মডেল থানার মামলা নং- ৪২, তারিখ- ২২/০৯/২০২১ ইং, ধারাঃ- ৩০২/৩৪ পেনাল কোড মামলার প্রধান আসামী মোঃ সাগর মিজি (২৪)কে গ্রেফতার করে। এসময় তার নিকট থেকে ভিকটিমের মোবাইলসহ মোট ০৩ টি মোবাইল ফোন ও নগদ- ১৫,০০০/- (পনের হাজার) টাকা উদ্ধার করা হয়।  ৩।        গ্রেফতারকৃত আসামী সাগর গত ১৮/০৯/২০২১ইং তারিখ সকাল আনুমানিক ১০:০০ ঘটিকায় কক্সবাজার কলাতলী এলাকার “আমারী রিসোর্ট” এর ১০৮ নম্বর রুম ভাড়া নেন এবং হোটেল কর্তৃপক্ষকে জানান যে ২০/০৯/২০২১ইং তার স্ত্রী ঢাকা হতে আসবেন, তখন তাকে অন্য একটি ডাবল রুম দিতে হবে। সে মোতাবেক গত ২০/০৯/২০২১ইং তারিখ আসামী সাগর তার স্ত্রীর পরিচয়ে মৃত জনৈকা নারী (২৬)কে “আমারী রিসোর্ট” এ নিয়ে আসে এবং ৪০৮ নম্বর রুমে উঠেন। পরবর্তীতে গত ২১/০৯/২০২১ তারিখ আনুমানিক ১০:০০ ঘটিকায় হোটেল কর্তৃপক্ষ উক্ত কক্ষে কোন সাড়া-শব্দ না পেলে তাদের মিস্ত্রি দ্বারা উক্ত কক্ষের দরজা ভেঙ্গে উক্ত নারীর মৃত দেহ দেখে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে বলে জানা যায়।  ৪।        গ্রেফতারকৃত আসামী সাগরের দেয়া তথ্যমতে জানা যায়, পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে নিহত নারীকে স্ত্রী পরিচয়ে কক্সবাজার “আমারী রিসোর্ট” এ নিয়ে যায়। রিসোর্টের উল্লিখিত কক্ষে নিয়ে ভিকটিমকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করার একপর্যায়ে সাগরের সাথে ভিকটিমের ধস্তাধস্তি শুরু হয়। ধস্তাধস্তিকালে সাগর ভিকটিমের গলা চেপে ধরে দেওয়ালের সাথে ধাক্কা দিলে নারীটি মেঝেতে পরে যায়। নারীটিকে পুণরায় গলা টিপে ধরে পাশে থাকা গøাস দিয়ে দুই/তিনবার সজোরে মাথায় আঘাত করে হত্যা করে আসামী সাগর ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় বলে জানা যায়।  ৫।        প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত আসামী সাগর একজন লম্পট। সে বিভিন্ন এলাকায় একাধিক নারীকে মিথ্যা প্রেমের ফাঁদে ফেলে অনৈতিক কর্মকান্ডে বাধ্য করেছে বলে জানা যায়। এছাড়াও সে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ এবং বিশ^বিদ্যালয় পড়–য়া ছাত্রীদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরতে নিয়ে কৌশলে জোরপূর্বক ধর্ষণ করত বলে জানা যায়।       ৬।        গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

র‌্যাব-১১ এর পৃথক অভিযানে রূপগঞ্জ হতে ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী এবং ডাকাতি মামলার ০১ জন পলাতক আসামী গ্রেফতার।

র‌্যাব-১১, সিপিএসসি, আদমজীনগর, নারায়ণগঞ্জের একটি আভিযানিক দল ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখ রাতে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন বরপা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে ০১ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী মঞ্জুর হোসেন ভুঁইয়া (৪২), পিতা- মৃত সাত্তার ভুঁইয়া’কে হাতে-নাতে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক অনুসন্ধান ও গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামীর বাড়ি নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন আড়িয়াব এলাকায়। সে দীর্ঘদিন যাবৎ কুমিল্লা জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য গাঁজা সংগ্রহ করে নিয়ে এসে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানা ও এর আশেপাশের এলাকায় ক্রয়-বিক্রয় করে আসছিল। ৩।    একই তারিখ পৃথক অভিযানে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন বরপা এলাকা হতে পলাতক আসামী প্রণয়দেব নাথ (২৪)’কে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামী ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার নবীনগর থানাধীন ইব্রাহীমপুর এলাকার মৃত গোপাল দেব এর ছেলে। সে রূপগঞ্জ থানার ডাকাতি মামলার অন্যতম আসামী। মামলা হওয়ার পর থেকে সে বিভিন্ন কৌশলে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। ৪।    উক্ত বিষয়ে গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। 

র‌্যাবের অভিযানে ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকা হতে ২০ লক্ষ টাকা মূল্যের হেরোইনসহ ০২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিঃ তারিখ আনুমানিক সন্ধ্যা ১৮:৩৫ ঘটিকায় র‌্যাব- ১০ এর একটি আভিযানিক দল ঢাকা জেলার দক্ষিণ থানাধীন বসুন্ধরা এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে ২০,০০,০০০/-(বিশ লক্ষ) টাকা মূল্যের ২০০ (দুইশত) গ্রাম হেরোইনসহ ০২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের নাম ১। মোঃ চাঁন মিয়া (৪০) ও ২। মোঃ কালু মিয়া (২৩) বলে জানা যায়। এসময় তাদের নিকট থেকে ০১টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।     প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিরা পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। তারা বেশ কিছুদিন যাবৎ দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় হেরোইন ও অন্যান্য মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে আসছিল বলে জানা যায়।      গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।  

র‌্যাব-৯ এর অভিযানে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানাধীন এলাকা হইতে ৭৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার।

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং, তারিখ ১৭:৩০ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৯, সিপিএসসি (ইসলামপুর, সিলেট ক্যাম্প) এর একটি আভিযানিক দল সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানাধীন মাদার খাল সাকিনস্থ জনৈক সুফান আলী এর বাড়ীর সামনে পাকা রাস্তার উপর কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদকদ্রব্য নিয়ে ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করিতেছে। প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের আভিযানিক দল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ সামিউল আলম এবং এএসপি তুহিন রেজা এর নেতৃত্বে উক্ত স্থানে উপস্থিত হয়ে ৭৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পরিত্যাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট সিলেট জেলার জকিগঞ্জ থানায় জিডি মূলে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সহজে ইনস্টল করুন, রিপোর্ট করুন, নিরাপদ থাকুন

রিপোর্ট টু র‌্যাব মোবাইল অ্যাপস

সন্ত্রাসী আক্রমন

র‍্যাবকে সন্ত্রাসী আক্রমনের তথ্য দিতে পারবেন

সন্ত্রাসী তথ্য

র‍্যাবকে সন্ত্রাসীর তথ্য দিতে পারবেন

সামাজিক যোগাযোগ

র‍্যাবকে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলতে অপরাধের তথ্য দিতে পারবেন

অপহরন

র‍্যাবকে অপহরনের তথ্য দিতে পারবেন

নিখোঁজ ব্যাক্তির তথ্য

র‍্যাবকে নিখোঁজ ব্যাক্তির তথ্য দিতে পারবেন

খুন

র‍্যাবকে খুনের তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন

ডাকাতি

র‍্যাবকে ডাকাতির তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে পারবেন

মাদক

র‍্যাবকে মাদকের তথ্য দিতে পারবেন

সম্মাননা



  • অতিরিক্ত আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম(বার)

    মহাপরিচালক

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    বিপিএম - ২০১৯

  • পুলিশ সুপার মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী বিপিএম

    র‌্যাব-২

    বিপিএম - ২০১৯

  • সাজেন্ট মোঃ শহীদুল ইসলাম,বিপিএম

    ইন্ট উইং

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    বিপিএম - ২০১৯

  • সৈনিক মোঃ রাকিব হোসেন,বিপিএম

    র‌্যাব-১

    বিপিএম - ২০১৯

  • কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার পিএসসি, বিপিএম(সেবা)

    অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস্)

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    বিপিএম (সেবা) - ২০১৯

  • লেঃ কর্নেল মোঃ মাহাবুব আলম বিপিএম(বার),বিপিএম(সেবা),পিপিএম

    অপস্ /ইন্ট উইং

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    বিপিএম (সেবা) - ২০১৯

  • লেঃ কর্নেল মীর আসাদুল আলম, বিপিএম (সেবা)

    এয়ার উইং

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    বিপিএম (সেবা) - ২০১৯

  • মেজর শাহীন আজাদ,বিপিএম, পিপিএম,জি+

    ইন্ট উইং

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    পিপিএম - ২০১৯

  • মেজর এস এম সুদীপ্ত শাহীন,পিপিএম(বার)

    অপস উইং

    র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর

    পিপিএম - ২০১৯

  • মেজর খান সজিবুল ইসলাম,পিপিএম

    র‌্যাব-৮

    পিপিএম - ২০১৯

ফটো গ্যালারি

ভিডিও গ্যালারি

র‌্যাব ব্যাটালিয়ন সমূহের তথ্য

র‌্যাব ব্যাটালিয়ন সমূহ