Home » News Room » র‌্যাবের ভিন্ন ভিন্ন অভিযানে চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলীয়া থানাধীন শাহ আমানত সেতু এবং চান্দগাঁও থানাধীন নতুন চান্দগাঁও মোড় এলাকা থেকে সর্বমোট ৪৫,৩৬৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব\ মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত সৌদিয়া পরিবহনের একটি বাস ও ০১ টি প্রাইভেটকার জব্দ

র‌্যাবের ভিন্ন ভিন্ন অভিযানে চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলীয়া থানাধীন শাহ আমানত সেতু এবং চান্দগাঁও থানাধীন নতুন চান্দগাঁও মোড় এলাকা থেকে সর্বমোট ৪৫,৩৬৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব\ মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত সৌদিয়া পরিবহনের একটি বাস ও ০১ টি প্রাইভেটকার জব্দ

Press - 2 (RAB-7) Pic - 26250 Yeba) (3)

র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী একটি যাত্রীবাহী বাসে করে কক্সবাজার হতে বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে চট্টগ্রামের দিকে আসছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ০২ নভেম্বর ২০১৯ ইং তারিখ ১৩৪৫ ঘটিকার সময় র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল চট্টগ্রাম মহানগরীর বাকলীয়া থানাধীন শাহ আমানত সেতুর সংযোগ সড়কের বাম পাশে ক্যাফে ডি গ্র্যান্ড হোটেল এন্ড বিরিয়ানী হাউজ এর সামনে পাকা রাস্তার উপর একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশি করতে থাকে। এসময় র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে আসা কক্সবাজার হতে চট্টগ্রামগামী সৌদিয়া পরিবহরেন একটি বাস (চট্ট মেট্রো-ব-১১-০৭২৭) তল্লাশির জন্য সংকেত দিলে বাসের ড্রাইভার র‌্যাবের চেকপোস্টের সামনে এসে দাঁড় করিয়ে ড্রাইভার বাস থেকে নেমে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা আসামী মোহাম্মদ ইউনুস (৫২), পিতা- মৃত আব্দুল হাকিম, গ্রাম- হারবাং (কালা সিকদার পাড়া), থানা- চকরিয়া, জেলা- কক্সবাজার’কে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তার দেখানো ও সনাক্ত মতে বাসের ভিতরে সুকৌশলে লুকানো অবস্থায় ১৯,১১৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয় এবং উক্ত বাসটি (চট্ট মেট্রো-ব-১১-০৭২৭) জব্দ করা হয়। জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী বাসের ড্রাইভিং এর আড়ালে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে যোগসাজশে ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে আসছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটের আনুমানিক মূল্য ৯৫ লক্ষ ৫৭ হাজার টাকা এবং জব্দকৃত বাসের আনুমানিক মূল্য ০১ কোটি টাকা।

অপর একটি অভিযানে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী প্রাইভেটকার এর মাধ্যমে কক্সবাজার হতে বিপুল পরিমান ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে চট্টগ্রামের দিকে আসছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে গত ০১ নভেম্বর ২০১৯ ইং তারিখ ১৯০০ ঘটিকার সময় র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল চট্টগ্রাম মহানগরীর চান্দগাঁও থানাধীন চান্দগাঁও থানা মোড় সাতকানিয়া গেষ্ট হাউজের প্রবেশ পথের সামনে পাকা রাস্তার উপর একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশি করতে থাকে। এসময় র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে আসা কক্সবাজার হতে চট্টগ্রামগামী একটি প্রাইভেটকারকে (ঢাকা মেট্রো-গ-২৮-১৯২৩) তল্লাশির জন্য সংকেত দিলে প্রাইভেটকারের ড্রাইভার র‌্যাবের চেকপোস্টের সামনে এসে দাঁড় করিয়ে চালকসহ উক্ত প্রাইভেটকার থেমে কয়েকজন ব্যক্তি নেমে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা আসামী ১। মোঃ আলমগীর হোসেন (৩২), পিতা- মোঃ হানিফ হোসেন, গ্রাম- বহরের কালুখালী (মন্ডলবাড়ী), ১নং রতনদিয়া ইউপি, থানা- কালুখালী, জেলা-রাজবাড়ী, বর্তমানে- বিবি মজিরন ভিলা, থানা- কালিয়াকৈর, জেলা- গাজীপুর, ২। ইভান শেখ (৪২), পিতা- মোঃ বাবুল শেখ, গ্রাম- সদানন্দপুর (জামে মসজিদের পাশে), সয়দাবাদ ইউপি, থানা- সিরাজগঞ্জ, বর্তমানে কোনাবাড়ী, পল্লী বিদ্যুতের পাশে, থানা- কোনাবাড়ী, জেলা- গাজীপুর মহানগর এবং ৩। মোঃ আরিফ হোসেন (২৮), পিতা- মৃত আবুল হোসেন, গ্রাম- আমবাগ (মিতালী ক্লাব উত্তর পাড়া), ১০নং ওয়ার্ড, থানা- কোনাবাড়ী, জেলা- গাজীপুর মহানগরীদের’কে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে দেখানো ও সনাক্ত মতে প্রাইভেটকারের ভিতরে সুকৌশলে লুকানো অবস্থায় ২৬,২৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ আসামীদেরকে গ্রেফতার করা হয় এবং উক্ত প্রাইভেটকারটি (ঢাকা মেট্রো-গ-২৮-১৯২৩) জব্দ করা হয়। এ সময় ০২ জন আসামী সুকৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের’কে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে পলাতক আসমী ১। মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৪০), পিতা- অজ্ঞাত, গ্রাম- অজ্ঞাত, এবং ২। মোঃ কামাল হোসেন (২২), পিতা- অজ্ঞাত, গ্রাম- অজ্ঞাত, উভয় থানা- কক্সবাজার সদর, জেলা- কক্সবাজার নাম ঠিকানা স্বীকার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের আরো জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা দীর্ঘদিন যাবত কক্সবাজার হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে উক্ত মাদকদ্রব্য ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে আসছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটের আনুমানিক মূল্য ০১ কোটি ৩১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা এবং জব্দকৃত প্রাইভেটকারের আনুমানিক মূল্য ১৫ লক্ষ টাকা।

সাম্প্রতিক ভিডিও




র‌্যাব কর্তৃক প্রদত্ত পরামর্শ

***জমি জমা বা টাকা-পয়সা সংক্রান্ত কোন অভিযোগ র‌্যাব কর্তৃক গ্রহণ করা হয় না ।
***ব্যক্তিগত বা পারিবারিক কোন সমস্যা র‌্যাব কর্তৃক গ্রহণ করা হয় না ।
***কোন অভিযোগ করার পূর্বে আপনার এলাকার জন্য দায়িত্বপূর্ন র‌্যাব ব্যাটালিয়ন/ক্যাম্প সম্পর্কে জানুন ও যথাযথ র‌্যাব ব্যাটালিয়ন/ক্যাম্পে অভিযোগ করুন ।
***আপনার এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের সম্পর্কে র‌্যাব কে তথ্য প্রদান করে র‌্যাবকে সহযোগীতা করুন । আপনার পরিচয় সম্প‍ুর্ন্ন গোপন রাখা হবে । ***বেশী করে গাছ লাগান অক্সিজেনের অভাব তাড়ান
***ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের আগুন নিয়ে খেলতে দিবেন না ।
***যাত্রা পথে অপরিচিত লোকের দেওয়া কিছু খাবেন না । ভ্রমণকালে সহযোগী বা অন্য কাহারো নিকট হইতে পান, বিড়ি, সিগারেট, চা বা অন্য কোন পানীয় খাওয়া/গ্রহন করা হইতে বিরত ‍থাকা আবশ্যক ।